Description

Course-1: Filmora for Beginners: Make Professional Videos within 2 Hours

 

 

মূলত ভিডিও বানানো সম্পর্কে আপনার ধারণা যদি শূন্যের কোঠায় থাকে, কিংবা হালকা পাতলাও জানা থাকে, অথবা ধরুন আপনার ইচ্ছে হচ্ছে খুব কম সময়ে ভিডিও এডিটিং শিখে নেবেন- তবে এই টিউটোরিয়ালটা আপনার জন্য উপযুক্ত। অ্যাডোবি আফটার ইফেক্টস কিংবা প্রিমিয়ার প্রো সফটওয়্যারের সাথে ফিল্মোরার মূল পার্থক্য হলো- ফিল্মোরা খুবই হালকা এবং দ্রুত কাজ করা যায় এমন একটি সফটওয়্যার।

এ টিউটোরিয়ালে আপনি মাত্র দুই ঘণ্টায় শিখে যাবেন কীভাবে একটি চমৎকার ভিডিও বানানো যায়।

 

কোর্সটি করতে আপনাকে যে বিষয়গুলো জানতে হবে।

১) Wondershare Filmora (8.5 ভার্শন বা তার উপরে হলে ভালো) সফটওয়্যারটি থাকতে হবে

২) অন্তত একটি মোটামুটি মানের ল্যাপটপ (মাউস থাকলে কাজ করতে অনেক সুবিধা হবে) বা ডেস্কটপ, যার কনফিগারেশন এরকম হলে ভালো-

Supported OS: Windows 7/Windows 8.1/Windows 10 (64 bit OS). Processor: Intel i3 or better multicore processor, 2GHz or above. RAM: 4 GB RAM Graphics: Intel HD Graphics 5000 or later; NVIDIA GeForce GTX 700 or later; AMD Radeon R5 or later. Disk: At least 10GB free hard-disk space for installation ৩) ইন্টারনেট সংযোগ

 

Course-2 and Course 3: How to Think Like a Businessman: Part-1 and Part-2

 

 

কাদের জন্য এই কোর্সঃ যারা জীবনে একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী হতে চান শুধুমাত্র তাদের জন্য।

কি কি থাকছে এই কোর্সেঃ

০১। কেন ব্যবসায়ী হবো?
০২। কোনটা হওয়া ভালো, ব্যবসায়ী নাকি দলনেতা?
০৩। অধিকাংশ ব্যবসায়ী ব্যবসায় সফল হয় না কেন?
০৪। ব্যবসা শুরু আগে কোন জিনিসগুলো জেনে নেওয়া উচিত?
০৫। কিভাবে একজন সফল ব্যবসায়ীর মত চিন্তা করতে শিখবো?
০৬। মানি ম্যানেজমেন্ট
০৭। টাইম ম্যানেজমেন্ট
০৮। স্টাফ ম্যানেজমেন্ট
এছাড়াও থাকছে ২টি কেস স্ট্যাডি।

 

Course-4: Online Course on Professional Skill Development

 

পড়াশোনা শেষ করে আমরা সবাই প্রবেশ করি প্রফেশনাল লাইফে। কিন্তু দুঃখজনক ব্যাপার হলো, ‘প্রফেশনাল স্কিল’ বলে জিনিস, তা আমাদের অনেকের প্রফেশনাল লাইফের শুরুতেই থাকে অনুপস্থিত।

এগুলো আসলে এমন কিছু দক্ষতা, যা কখনো আপনাকে ভার্সিটিতে শেখানো হয় না। সময়মতো অফিসে যাওয়া, মিটিংয়ে স্বতঃস্ফূর্তভাবে উপস্থিত থাকা, দরকারি সিদ্ধান্তগুলো টুকে নেয়া, সাম্প্রতিক বিষয়াবলী সম্পর্কে সজাগ থাকা, নিজেকে ক্রমাগত বিভিন্ন কাজকর্মের মাধ্যমে দক্ষ করে তোলা, সহকর্মীদের সাথে সদাচরণ, দলগত কাজের মানসিকতা থাকা, অন্যকে সাহায্য করা, দরকারে অন্যের কাছ থেকে সাহায্য নেয়া, কাজের গুণগত মান নিশ্চিত করা, সময়ের সর্বোত্তম ব্যবহার করা, পরিস্থিতি বুঝে সঠিক সিদ্ধান্ত নেয়া- এ সবই আপনার প্রফেশনাল স্কিলের অন্তর্গত। কিন্তু আমাদের অনেকের মাঝেই এসব থাকে অনুপস্থিত।

ফলশ্রুতিতে প্রফেশনাল লাইফে আপনি যেমন পরিবেশ চান, পরিবেশটা আপনার জন্য সেরকম হয়ে ওঠে না। দমবন্ধ লাগা শুরু করে চারপাশের পরিবেশ। ফলে আপনার ইনপুটের পরিমাণ কমে যেতে থাকে, নামতে থাকে মান। আউটপুটের যে তখন কী অবস্থা হবে তা তো আর না বললেও চলে। কিন্তু ঠিক বিপরীত ঘটনাগুলোই ঘটবে যদি আপনি প্রফেশনালিজম দেখাতে শুরু করেন। চারদিকের পরিবেশটাই যেন আপনার জয়গান গাইতে শুরু করবে। এই দক্ষতা যেমন আপনাকে বর্তমান কর্মস্থলে সফলতা এনে দেবে, তেমনই সহায়ক হবে সামনের দিনে আরো বড় বড় প্রতিষ্ঠানে কাজ করার ব্যাপারেও। এখন আপনিই বলুন, আপনার কি প্রফেশনালি স্কিল্‌ড হওয়ার দরকার নেই?

চাকরিক্ষেত্রে আমাদের যেসব প্রফেশনাল স্কিল দেখাতে হয় সেগুলোর মাঝে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো টিমওয়ার্ক, প্রেজেন্টেশন এবং ভার্বাল ও রিটেন কমিউনিকেশন। কেন কেবলমাত্র এই কয়েকটি বিষয়েই আলোকপাত করা হলো? আসুন তাহলে একটু কথাবার্তা হয়ে যাক।

প্রথমেই আসা যাক টিমওয়ার্কের কথায়। এতদিন আমরা সবাই আলাদা-আলাদাভাবে কাজ করেছি জীবনের বিভিন্ন পর্যায়ে। কিন্তু প্রফেশনাল লাইফটা একেবারেই আলাদা। এখানে একা একা কখনোই ১০০ ভাগ সফলতা অর্জন কিংবা লক্ষ্যে পৌঁছান সম্ভব না। বরং সবাই মিলে একসাথে কাজ করাই এর একমাত্র মাধ্যম। টিমওয়ার্কের মাধ্যমে আপনি যেমন শুরুতেই নিজেকে ডেভেলপ করতে বাধ্য হবেন, তেমনি অন্যের মতামতকে গুরুত্ব দেয়া, অপরের কাছ থেকে কিছু শেখার মানসিকতা, দলে কীভাবে সবার মাঝে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখা যায়, কীভাবে একেক প্রান্তে দলের একেকজন থেকেও শেষপর্যন্ত একটি কাজ সফলতার সাথে বের করে আনা যায়- এসব বিষয় বুঝতে টিমওয়ার্কের কোনো বিকল্প নেই। এখানে যেমন দলগতভাবে কাজের দক্ষতা নিশ্চিত হয়, তেমনই নিজের তাগিদে ও অন্যের ঠেলায় পড়ে নিজের উন্নতিটাও হয়ে যায়!

এবার হোক প্রেজেন্টেশন নিয়ে কথাবার্তা। আপনি এত কষ্ট করে আপনার ক্লায়েন্ট বা কোনো মিটিংয়ের জন্য একটি প্রেজেন্টেশন তৈরি করলেন, কিন্তু ঠিকমতো সেটা প্রেজেন্টই করতে পারলেন ন, তাহলে আসলে আপনার সকল পরিশ্রমই জলে গেলো। কথা ঠিকমতো সাজিয়ে বলতে না পারা, বারবার আটকে যাওয়া, প্রেজেন্টেশনের ধারাবাহিকতা না থাকা, ঘুম ধরানো প্রেজেন্টেশন, বোরিং কথাবার্তা, রোবটের মতো অঙ্গভঙ্গি- ইত্যাদি নানা সমস্যার আমাদের অনেকেই আটকে যায়। আর এর জন্য আপনার অবশ্যই প্রেজেন্টেশনে দক্ষ হতে হবে, দলগত ও ব্যক্তিগত প্রেজেন্টেশন।

সবার শেষে আসা যাক লেখালেখির কথায়। বাংলাদেশ সায়েন্স সোসাইটির পক্ষ থেকে ট্রেনিংটির আয়োজন হওয়ায় আমরা মূলত গুরুত্ব দিব বিজ্ঞান ভিত্তিক লেখালেখির দিকেই। বিজ্ঞান বিষয়ক ফিচার ও রিপোর্টকে আরো সুন্দর ও প্রাণবন্ত রুপে উপস্থাপন করা যায়, কীভাবে বানানের সাধারণ ভুলগুলোকেও এড়ানো যায় এবং সর্বোপরি কোনো প্রস্তাবনা কোনো প্রতিষ্ঠানের কাছে কীভাবে পাঠাতে হয় ও বিভিন্ন জায়গায় ই-মেইল করার মতো সাধারণ একটি বিষয়ও কীভাবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে- এ বিষয়গুলোও সবিশেষ গুরুত্বপূর্ণ যেকোনো প্রফেশনাল লাইফের বেলাতেই।

২) কোর্সে যা যা থাকছে


a) Team work-1
b) Team work-2
c) Leadership-1
d) Leadership-2
e) Presentation-1
f) Presentation-2
g) Scientific feature & report writing
h) Proposal & mail writing

 

 

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “Professional Skill Enhancement”

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Copyright 2020 BePro. All rights reserved